1. admin@dainiknabadiganterdak.com : admin :
সোমবার, ০২ অগাস্ট ২০২১, ০৭:১৮ অপরাহ্ন

আলোর স্মার্টনেস

মেহেদী হাসান
  • সময় : শুক্রবার, ২ এপ্রিল, ২০২১
  • ২৫৬ বার পঠিত
সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আলোর স্মার্টনেস

লেখকঃমেহেদী হাসান
ঠিকানাঃ পীরগঞ্জ রংপুর

আলো খুবই অদ্ভুত! কেউ বলে তরঙ্গ আবার কেউ বলে কণা। এটা নিয়ে বিজ্ঞানীদের মাঝে দ্বন্দ্ব চলছেই। আলোর তরঙ্গ বা কণা যাই হোক না কেন সে কিন্তু খুবই স্মার্ট। কি আজব তাই না? আজব হলেও এটাই সত্যি।আলোর স্মার্টনেস নিয়ে জানার আগে আমাদের ফার্মাটের নীতি টা একটু জেনে নিতে হবে।
বিজ্ঞানী ফার্মাট সাহেব বলেন,“এক বিন্দু থেকে অন্য বিন্দুতে যাওয়ার সময় আলো সবচেয়ে ছোট বা বড় পথ বেছে নেয়।”আজব তো!ছোট পথ বেচে নিলে তাকে স্মার্ট বলা গেলেও বড় পথ বেছে নিলে তো আলোর চেয়ে বোকা আর হয় না। কিন্তু এখানেই আলোর স্মার্টনেস!
আলোর কোথাও যেতে হলে সে ছোট পথটাই বেছে নেয়। এবং ওই পথটিই একমাত্র পথ যা সরলরেখা ও যাতে আপাতন কোণ আর প্রতিফলন কোণ সমান হয়ে যায়।কিন্তু প্রতিসরণের বেলায় ঘটনাটা একটু আলাদা।আলো বাতাস থেকে কাঁচে বা অন্যকোন ঘন মাধ্যমে যাওয়ার সময় বড় পথটাই অনুসরণ করে।
আলোর বেগ হালকা মাধ্যমে বেশি কিন্তু ঘন মাধ্যমে কম। তাই আলো অনেকটা পিপড়ার মত কাজ করে। পিঁপড়া গ্রীষ্মকালে খাদ্য সঞ্চয় একটু বেশি করেই করে যাতে করে শীতকালের মত প্রতিকূল পরিবেশে খাদ্যের জন্য খাটুনিটা একটু কম হয়। তেমনি আলোর প্রতিসরণের সময় বাতাসের সবচেয়ে বড় পথটা বেছে, সময় বেশী লাগিয়ে কাঁচের ভেতর চলার পথটা ছোট করে আনে। ফলে কাঁচে চলতে কম সময় লাগে আর মোট সময় তুলনামূলক কম হয়।
আসলেই আলো স্মার্ট। সে জানে ও বুঝে কখন বড় পথটা দিয়ে যেতে হবে, আর কখন ছোটটা। তাইতো আমি আলোকে সুবিধাবাদী বলে ডাকি। তাই বন্ধু, আলো যদি স্মার্ট হতে পারে তুমি কেন হবেনা?


সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা