1. admin@dainiknabadiganterdak.com : admin :
  2. nabadiganterdak@gmail.com : Md Sabbir : Md Sabbir
বুধবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:১৪ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
উন্নয়ন অগ্রযাত্রায় শিক্ষা সেমিনার জুম প্লাটফর্মের শুভ উদ্ভোধন হরিপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের আয়োজনে প্রধানমন্ত্রীর ৭৫তম জন্মদিন পালন হরিপুরে আন্তর্জাতিক তথ্য অধিকার দিবসে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন উপলক্ষে রাণীশংকৈলে আনন্দ র‍্যালী ও মিলাদ মাহ্ফিল পীরগঞ্জে প্রধানমন্ত্রীর ৭৫তম জন্মদিন উদযাপন প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন উপলক্ষে ছাত্রলীগের র‌্যালি,মিলাত ও দোয়া অনুষ্ঠিত মিথ্যা অভিযোগ করায় পাল্টা সংবাদ সম্মেলন – বেলাল উদ্দিন ঠাকুরগাঁওয়ের জঙ্গলে মিলল যুবকের গলাকাটা লাশ প্রধানমন্ত্রীর নিউইয়র্ক সফর নিয়ে কটূক্তি করায় ভুরুঙ্গামারীতে একজনকে থানায় সোপর্দ পঞ্চগড়ে বজ্রপাতে এক যুবকের মুত্যু, আহত ৪

মেজর সিনহা হত্যা মামলায় আসামিপক্ষের আইনজীবীরা সাক্ষীদের জেরার নামে সময়ক্ষেপণ করছেন বলে অভিযোগ করেছেন- রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীরা

নিউজ ডেস্ক
  • সময় : মঙ্গলবার, ৭ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ৬৯ বার পঠিত
সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মো. রাশেদ খান হত্যা মামলায় আসামিপক্ষের আইনজীবীরা সাক্ষীদের জেরার নামে সময়ক্ষেপণ করছেন বলে অভিযোগ করেছেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীরা।

 

আসামিপক্ষের আইনজীবীদের অভিযোগ, মূলত একটি স্বার্থান্বেষী মহলের শেখানো কথা বলার জন্য বিভিন্ন লোকজনকে সাক্ষী হিসেবে নিয়ে আসা হচ্ছে। আলোচিত হত্যা মামলাটির দ্বিতীয় দফার তৃতীয় দিন আজ মঙ্গলবার কক্সবাজার আদালতে সাক্ষ্য দিয়েছেন ৮ নম্বর সাক্ষী হাফেজ মো. আমিন।

 

সাক্ষ্যদানের দিক থেকে তিনি পঞ্চম। ২০২০ সালের ৩১ জুলাই রাতে টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কের শামলাপুর তল্লাশিচৌকিতে পুলিশের গুলিতে খুন হন সিনহা মো. রাশেদ খান।

 

ঘটনার সময় হাফেজ মো. আমিন পাশের একটি মসজিদ কাম মাদ্রাসায় ছাদে ছিলেন। মসজিদ থেকে তল্লাশিচৌকির দূরত্ব ৩০-৪০ কদম বলে উল্লেখ করেন সাক্ষী হাফেজ। তিনি ওই মসজিদের ইমাম ছিলেন।

 

মামলাসংশ্লিষ্ট একাধিক আইনজীবী জানান, সাক্ষ্য প্রদানের সময় হাফেজ মো. আমিন আদালতে বলেছেন, সেদিন রাতে তল্লাশিচৌকির পাশে পুলিশ পরিদর্শক লিয়াকত আলীর গুলিতে সিনহা মাটিতে (সড়কে) পড়ে ছটফট করছিলেন।

 

প্রাণ বাঁচানোর জন্য পানির জন্য আকুতি জানাচ্ছিলেন। লিয়াকত আলী সিনহার দিকে গিয়ে বুকে লাথি মারেন কয়েকবার। পা দিয়ে মাথাও চেপে ধরেন। এর কিছুক্ষণ পর টেকনাফের দিক থেকে সাদা মাইক্রোবাস নিয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছান প্রদীপ কুমার দাশ (টেকনাফ থানার তৎকালীন ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা)।

 

তখনো সিনহা জীবিত ছিলেন এবং ‘পানি পানি’ করছিলেন। ওসি প্রদীপ তখন লাথি মারেন এবং পা দিয়ে গলা চেপে ধরে সিনহার মৃত্যু নিশ্চিত করেন। কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতে হাফেজ মো. আমিনের সাক্ষ্য গ্রহণ করেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ফরিদুল আলমের নেতৃত্বে তিনজন আইনজীবী।

 

এরপর আসামিপক্ষের অন্তত ১৩ আইনজীবী তাঁকে জেরা করেন। সাক্ষ্য গ্রহণের সময় আদালতের কাঠগড়ায় ছিলেন ওসি প্রদীপ কুমার দাশ, পরিদর্শক লিয়াকত আলীসহ ১৫ জন আসামি।

 

আদালত পরিচালনা করেন জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ ইসমাইল। আইনজীবীরা জানান, মঙ্গলবার সকাল ১০টায় শুরু হয় আদালতের বিচারকার্য। সাক্ষ্য গ্রহণের জন্য আদালতে হাজির করা হয় তিনজন সাক্ষী—হাফেজ মো. আমিন, মো. শওকত হোসেন ও মো. সাইফুলকে।

 

শুরুতে সাক্ষ্য দেন হাফেজ মো. আমিন। সাক্ষ্য গ্রহণ শেষ করে দুপুরে শুরু হয় আসামিপক্ষের আইনজীবীদের জেরা। বেলা দুইটায় এক ঘণ্টার বিরতি দিয়ে তিনটায় শুরু হয় আবার জেরা।

 

বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত আসামিপক্ষের অন্তত ১৩ জন আইনজীবী হাফেজ মো. আমিনকে জেরা করেন। এরপর বিচারকার্য মুলতবি করা হয়। বুধবার (৮ সেপ্টেম্বর) পুনরায় সাক্ষ্য গ্রহণ চলবে


সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা